অনুষ্ঠিত হল আল আমীন মিশনের একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির প্রবেশিকা পরীক্ষা,২০মার্চ জানা যাবে ফলাফল

0

নিজস্ব প্রতিবেদক,টাইমস্ বাংলা,কলকাতা:২৪শে ফেব্রুয়ারি রবিবার পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলাতে অনুষ্ঠিত হল আল-আমীন মিশনে একাদশ শ্রেণীর বিজ্ঞান ও কলা বিভাগে ভর্তির প্রবেশিকা পরীক্ষা। মোট ৩১টি পরীক্ষাকেন্দ্রে হয়েছে এই পরীক্ষা। পরীক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ছয় হাজারের অধিক যা গতবারের তুলনায় অনেকটাই বেশি বলে জানিয়েছে মিশন কর্তৃপক্ষ। লিখিত পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতেই বের হবে মেধা তালিকা।

আল-আমীন পরিবারের অন্যতম সদস্য মোমিনুর রহমান টাইমস্ বাংলাকে জানিয়েছেন আগামী ২০ মার্চ প্রবেশিকা পরীক্ষার মেধাতালিকা মিশনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। ছাত্র ছাত্রীরা দুপুর দুটো থেকেই তাদের ফলাফল জানতে পারবে www.alameenmission.org তে।

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির প্রবেশিকা পরীক্ষা দিতে আসা ছাত্র ছাত্রীরা কি বলছে শুনুন

উত্তর চব্বিশ পরগনার বসিরহাট আমিনিয়া মাদ্রাসায় ছিল বসিরহাট সংলগ্ন এলাকার ছাত্রী ছাত্রীদের জন্য প্রবেশিকা পরীক্ষা কেন্দ্র।এই পরীক্ষা কেন্দ্রে বিজ্ঞান ও কলা বিভাগ মিলিয়ে মোট ১৫০ ছাত্র ছাত্রী পরীক্ষা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, আল আমীন মিশন প্রতি বছরই পঞ্চম থেকে নবম ও একাদশ শ্রেণীতে ভর্ভির প্রবেশিকা পরীক্ষা নেয়। এই প্রবেশিকা পরীক্ষার মাধ্যম আল আমীন মিশন পরিবার খুঁজে বের করে সমাজের দরিদ্র মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের। প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র -ছাত্রীদের সাক্ষাতের পর আল আমীন মিশনে ভর্ত্তি নেওয়া হয়।

উল্লেখ করা যেতে পারে, আল আমীন মিশন রাজ্যের এমন একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেখানে ছাত্র -ছাত্রীদের পড়াশুনার পাশাপাশি কৃষ্টি কালচার ও দ্বিন শিক্ষা দেওয়া হয়। উচ্চমাধ্যমিক ছাত্র ছাত্রীদের মেডিকেল ও ইঞ্জিনিয়ারিং এর কোচিং দেওয়া হয়।প্রতি বছরই মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক -এ আল আমীনের ছাত্র ছাত্রীদের নজরকাড়া ফলাফল আজ কারোর অজানা নয়। আল আমীন মিশন থেকেই উঠে আসে দরিদ্র খেটে খাওয়া পরিবারের সন্তান ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, উকিল ও উচ্চপদস্থ সরকারি অফিসাররা।

আল আমীন পরিবারের ‘অনন্য প্রাক্তনী’দের দেখেনিন একনজরে

এদিন পরীক্ষার পাশাপাশি সকল পরীক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হয় একটি অনবদ্য বই যার নাম ‘অনন্য প্রাক্তনী’। বইটির বিশেষত্ব হল, এই আল-আমীন মিশনের যখন থেকে পথ চলার শুরু ঠিক তখন থেকে আজ অব্দি যত কৃতি ছাত্র-ছাত্রীরা এই মিশনের নাম উজ্জ্বল করে সমাজে আজ প্রতিষ্ঠিত, তাঁদেরই গল্প ও আল-আমীনের সাথে তাঁদের যাত্রার কথা-কাহিনীই বর্ণিত আছে এতে।

প্রাক্তনীদের মধ্যে প্রায় তিন হাজার ডাক্তার, আড়াই হাজার ইঞ্জিনিয়ার, শত শত শিক্ষক, অধ্যাপক, গবেষক, প্রশাসনিক অধিকার যাঁদের পেয়েছে এই সমাজ, যাঁরা বেড়ে উঠেছে আল-আমীনের ছত্রছায়ায়। রবিবার প্রবেশিকা পরীক্ষার্থী দের হাতে বইটি তুলে দেওয়ার অর্থই হল সেই সকল পিছিয়ে পড়া ছেলেমেয়ে দের জীবনে বড় হওয়ার অনুপ্রেরণা দেওয়া।

আল আমীন মিশনের সাধারন সম্পাদক তথা আল আমীন পরিবারের প্রাণপুরুষ এম নুরুল ইসলাম সাহেব এই প্রবেশিকা পরীক্ষার্থীদের উদ্দশ্যে করে বলেন “ এরাই ভবিষ্যতের ডাক্তার,ইঞ্জিনিয়ার, বিচারক, আই এ এস ও আই পি এস অফিসার। যারা রাজ্য, দেশ ছাড়িয়ে বিশ্বের দরবারে একদিন নিজেদের অবস্থান জানান দেবে ইনশাল্লাহ্। প্রবেশিকা পরীক্ষায় অংশ নেওয়া সকল ছাত্র ছাত্রীদের শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন তিনি।