আল-আমীন মিশন ইনস্টিটিউট ফর এডুকেশন রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, অনন্য সম্মানে সম্মানিত ৪০ প্রাক্তনী(ভিডিও সহ)

0
al ameen mission

সহিদুর রহমান,টাইমস বাংলা, নিউটাউনঃ স্বাধীনতাত্তোর বাংলার  পিছিয়ে থাকা সমাজ শিক্ষাক্ষেত্রে ও আর্থিকক্ষেত্রে পিছিয়ে ছিল। জীবিকা নির্বাহের ক্ষেত্রে মুলত কায়িক পরিশ্রম ছিল এক মাত্র পথ। সমাজ, রাজ্য তথা রাষ্ট্রের কাছে গুরুত্ব হারা হয়েছিল। তাই এই সমাজকে সঠিক পথ দেখাতে  হাওড়া জেলার উদয় নারায়নপুরের এক নগন্য মাদ্রাসা শিক্ষক জনাব নুরুল ইসলাম সাহেব ও তাঁর সহযোগীদের প্রচেষ্টায় ১৯৮৬ সালে ৭ জন ছাত্র নিয়ে শুরু হয় আবাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আল-আমীন মিশন। বর্তমানে আল-আমীনের ৭০ টির বেশি শাখা, ১৭ হাজার আবাসিক ছাত্রছাত্রী।

আল-আমীন মিশনের ৪০ অনন্য প্রাক্তনীকে দেখে নিন একনজরে

আল-আমীন এই সমাজকে দিয়েছে – ২০ হাজার প্রাক্তনী , যাদের মধ্যে প্রায় ৩ হাজার ডাক্তার, আড়াই হাজার ইঞ্জিনিয়ার, শত শত গবেষক, প্রশাসনিক অধিকর্তা, অধ্যাপক ও গবেষক। এখানেই আল-আমীন থেমে থাকেনি। ভাবছে সেই সমস্ত মানুষের কথা, যারা এখনও শিক্ষার আলো পায়নি। এখনও অনেক মেধা অন্ধকারে পড়ে নষ্ট হচ্ছে, সেই সমস্ত মেধা শক্তিকে তুলে মেধার বিকাশ ঘটাতে পারলে সমাজ তথা বিশ্ব সম্পদের বিকাশ ঘটবে। তাই ১৭ ফেব্রুয়ারী রবিবার আল-আমীন বাংলার পিছেয়ে পড়া সমাজকে উপহার দিলো ‘আল-আমীন মিশন ইনস্টিটিউট ফর এডুকেশন রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং’ ।

আল আমীন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন | কি বললেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম?

ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মাননীয় পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী তথা কলকাতার মাননীয় মহানাগরিক শ্রী ফিরহাদ হাকিম। এছাড়া অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ শ্রীমতী কাকলি ঘোষ দস্তিদার,বিধায়ক শ্রী সব্যসাচী দত্ত, চেয়ারম্যান রাজ্য হজ কমিটি শ্রী নাদিমুল হক ও আই এ এস ডা. পি বি সেলিম। এই দিনটি কেন পিছিয়ে পরা সংখ্যালঘু মুসলিম সমাজের কাছে ঐতিহাসিক এক গর্বের দিন? কারন, কলকাতার নিউটাউনে ‘আল-আমীন মিশন ইনস্টিটিউট ফর এডুকেশন রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং’ হত দরিদ্র মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের জন্য একটি প্লাটফর্ম। এখানে মেডিকেলের পোস্ট গ্রাজুয়েশনের কোচিং- এর ব্যবস্থা থাকবে। থাকবে আইআইটি, আইআইএম, ক্ল্যাট ম্যাট, ডব্লিবিসিএস, আইএএস, আইপিএস তথা ইউপিএসসি-র বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রশিক্ষণকেন্দ্র। এই ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে আল-আমীনের সম্পাদক তথা প্রাণপুরুষ নুরুল ইসলাম সাহেব বলেন,’আজ আল-আমীন মিশন ইনস্টিটিউট ফর এডুকেশন রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের দিনটি আল-আমীন মিশনের ইতিহাসে এক গুরুত্বপূর্ণ দিন।

আল আমীন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন | কি বললেন পি বি সেলিম ?

‘ এছাড়া তিনি আরও বলেন, ‘ আগামী দিনে এটাই হবে আল-আমীনের প্রধান কেন্দ্র, সেন্টার অফ এক্সেলেন্স।‘ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘ প্রত্যেক অবিভাবকদের তাঁদের সন্তানদের স্বপ্ন দেখাতে হবে এবং বাবা মা যেন স্বপ্ন দেখান। ‘ এবং ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ তোমাদের এমন একটা জায়গাতে যেতে হবে যে তোমাদেরকে নিয়ে আমরা গর্ব করতে পারি আর আল-আমীনের সকল ছাত্র-ছাত্রীরা একদিন তা করতে পারবে।‘ তিনি আরও বলেন, ‘কেউ তোমাদের জায়গা দেবে না,তোমাদের নিজেদের জায়গা নিজেদেরকে ছিনিয়ে নিতে হবে আর ইমান ও শিক্ষা একসঙ্গে থাকলে কেউ তাঁদের আটকাতে পারবেনা যেটা আল-আমীন মিশন দেয়।‘এই বিশেষ দিনটিতে আল-আমীন মিশন উজ্জ্বল প্রক্তনীদের মধ্য থেকে ৪২ জনকে ‘ অনন্য প্রাক্তনী সম্মাননা’ দিয়েছেন। আগামী প্রজন্মকে আরও উৎসাহিত করতে প্রক্তনীদের মধ্যে ১৪ জন ডাক্তার, ১০জন অধ্যাপক, ১৩জন পদস্থ সরকারি আধিকারিক ও অন্যান্য ক্ষেত্রর আরও ৫ জনকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননা প্রদান করেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মাননীয় পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী তথা কলকাতার মাননীয় মহানাগরিক শ্রী ফিরহাদ হাকিম, আল-আমীনের সম্পাদক তথা প্রাণপুরুষ নুরুল ইসলাম সাহেব এছাড়া সাংসদ শ্রীমতী কাকলি ঘোষ দস্তিদার,বিধায়ক শ্রী সব্যসাচী দত্ত, চেয়ারম্যান রাজ্য হজ কমিটি শ্রী নাদিমুল হক ও আই এ এস ডা. পি বি সেলিম।

ছাত্রীদের কণ্ঠে অসাধারণ একটি দেশাত্মবোধক গান

আল আমীন পরিবারের সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত