ক্যানসার হয়নি, ভুল চিকিৎসার ফল – রোগীর মৃত্যু

0

টাইমস বাংলা নিউজ ডেস্কঃ নিউ টাউনের বাসিন্দা অশোক দিওয়ান (৬১)-এর ক্যানসার হয়নি, অথচ ক্যানসারের চিকিৎসা করায় মৃত্যু হয়েছে। এমন অভিযোগ উঠল এক বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে। রবিবার বৃদ্ধের ছেলে অশ্বিনী দিওয়ান জানান, গত জুলাইয়ে বাবা আচমকা পড়ে যান। ঘটনার দু’দিন পরে চিকিৎসকের পরামর্শে বাইপাস সংলগ্ন শহরের এক নামী বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে৷ চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁর বাবার এমআরআই হয়। তিনি বলেন,‘‘রিপোর্ট দেখে হাসপাতালের নিউরোসার্জেন জানান, মস্তিষ্কে ক্যানসার হয়েছে বাবার৷ ক্যানসারের শেষ পর্যায়ে রয়েছেন তিনি। অবিলম্বে ‘স্টিরিওট্যাকটিক বায়োপসি’ করাতে হবে।’’ সে দিনই হাসপাতালে ভর্তি হন বৃদ্ধ। অশ্বিনীর অভিযোগ, ‘‘তিন দিন পরেও বায়োপসি না হওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করলে চিকিৎসক জানান, তা করে লাভ নেই।’’ বরং কেমোথেরাপি এবং রেডিয়োথেরাপি শুরু হয়। একমাস ধরে চলে কেমোথেরাপি এবং রেডিওথেরাপি৷ কিন্তু তাতে অসুস্থতা বাড়তে থাকে ওই বৃদ্ধের৷ ২৬ আগস্ট ফুসফুসে সংক্রমণ হয় তাঁর৷ আবারও ভরতি করা হয় ওই বেসরকারি হাসপাতালে৷ পরিজনদের দাবি, গত অক্টোবরে ফের এমআরআই হলে ভুল চিকিৎসার বিষয়টি ধরা পড়ে। অশ্বিনীর কথায়, ‘‘এর পরে কর্তৃপক্ষ জানান, চিকিৎসার জন্য আর টাকা দিতে হবে না। বাবা যত দিন বাঁচবেন, চিকিৎসার খরচ হাসপাতাল বহন করবে।’’ এতে পরিজনেদের সন্দেহ হয়। অশ্বিনীর দাবি, ‘‘শহর এবং দেশ-বিদেশের কয়েক জন চিকিৎসককে দ্বিতীয় এমআরআই রিপোর্ট দেখানো হয়। তাঁদের প্রশ্ন, ‘বায়োপসি ছাড়া কেন ক্যানসারের চিকিৎসা হল?’ গত ২৬ ডিসেম্বর চেন্নাইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় অশোকবাবুর। মৃত্যুর জন্য বাইপাসের ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ তুলে স্বাস্থ্য কমিশন, রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলে গিয়েছে পরিবার। যদিও ওই বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ‘ভুল’ চিকিৎসার অভিযোগ মানতে নারাজ৷

এমআরআই হয়। তিনি বলেন,‘‘রিপোর্ট দেখে হাসপাতালের নিউরোসার্জেন জানান, মস্তিষ্কে ক্যানসার হয়েছে বাবার৷ ক্যানসারের শেষ পর্যায়ে রয়েছেন তিনি। অবিলম্বে ‘স্টিরিওট্যাকটিক বায়োপসি’ করাতে হবে।’’ সে দিনই হাসপাতালে ভর্তি হন বৃদ্ধ। অশ্বিনীর অভিযোগ, ‘‘তিন দিন পরেও বায়োপসি না হওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করলে চিকিৎসক জানান, তা করে লাভ নেই।’’ বরং কেমোথেরাপি এবং রেডিয়োথেরাপি শুরু হয়। একমাস ধরে চলে কেমোথেরাপি এবং রেডিওথেরাপি৷ কিন্তু তাতে অসুস্থতা বাড়তে থাকে ওই বৃদ্ধের৷ ২৬ আগস্ট ফুসফুসে সংক্রমণ হয় তাঁর৷ আবারও ভরতি করা হয় ওই বেসরকারি হাসপাতালে৷ পরিজনদের দাবি, গত অক্টোবরে ফের এমআরআই হলে ভুল চিকিৎসার বিষয়টি ধরা পড়ে। অশ্বিনীর কথায়, ‘‘এর পরে কর্তৃপক্ষ জানান, চিকিৎসার জন্য আর টাকা দিতে হবে না। বাবা যত দিন বাঁচবেন, চিকিৎসার খরচ হাসপাতাল বহন করবে।’’ এতে পরিজনেদের সন্দেহ হয়। অশ্বিনীর দাবি, ‘‘শহর এবং দেশ-বিদেশের কয়েক জন চিকিৎসককে দ্বিতীয় এমআরআই রিপোর্ট দেখানো হয়। তাঁদের প্রশ্ন, ‘বায়োপসি ছাড়া কেন ক্যানসারের চিকিৎসা হল?’ গত ২৬ ডিসেম্বর চেন্নাইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় অশোকবাবুর। মৃত্যুর জন্য বাইপাসের ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ তুলে স্বাস্থ্য কমিশন, রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলে গিয়েছে পরিবার। যদিও ওই বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ‘ভুল’ চিকিৎসার অভিযোগ মানতে নারাজ৷