জন্মদিনে রক্তদান করে অনন্য নজির গড়ল হ্যাক ওয়েলফেয়ার সোসাইটির অন্যতম সদস্য আসমাউল বেগ

0

বিশেষ প্রতিবেদন, টাইমস বাংলা: “জন্মদিনে রক্তদান করে বিশেষ দিনটি উদযাপিত হোক যাতে ব্লাডব্যাংক গুলো কিছুটা হলেও রক্তশূন্যতার ভোগান্তি থেকে রেহাই পাবে।” জরুরি ভিত্তিক মুমূর্ষু মানুষের রক্তের ব্যবস্থা করতে থাকা বিভিন্ন সামাজসেবী মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া মারফত সাধারণ মানুষের কাছে এই বার্তা পৌঁছাতে চান তাদের মাঝে উলুবেড়িয়ার আসমাউল বেগ একজন। বছর পঁচিশের এই যুবক পেশায় একজন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার এবং পাশাপাশি বিগত ৫-বছর ধরে “হ্যাক ওয়েলফেয়ার সোসাইটি” নামে একটি NGO-র কোষাধ্যক্ষ। করোনা মহামারীর ফলে দৈনিক খেটে খাওয়া দিনমজুর মানুষের জন্য খাদ্যসামগ্রী, জরুরি ভিত্তিক ওষুধ এবং ব্লাডব্যাংক গুলোতে অভাবনীয় রক্ত সংকটে বিকল্প ব্যবস্থায় রক্তের ঘাটতি মেটাতে অগ্রণী হয়ে রক্তবন্ধু নামে একটি গ্রুপ করেন। তিনি জানান রক্তবন্ধুর লাইভ ডোনারদের সাহায্যে রাজ্যজুড়ে এযাবৎ আমরা দুই শতাধিক রক্তদাতা দিয়ে মুমূর্ষু মানুষের পাশে দাঁড়াতে পেরেছি । তিনি আরও বলেন, রক্তদানের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আমরা অধিকাংশ মানুষ ওয়াকিবহাল নয়, যখন কোন ব্যক্তির রক্তের প্রয়োজন হয় তখনই সে ও তার পরিবারের লোকজন বুঝতে পারেন রক্তদানের গুরুত্ব। নিজের পরিচিত মানুষদের ৩-মাস (পুরুষ) ৪-মাস (মহিলা) অন্তর অন্তর রক্তদান করতে আবেদন করেন এবং ক্ষেত্রবিশেষে যদি এই রুটিন মাফিক না হয়ে ওঠে তাহলে অন্তত বছর শেষে নিজের জন্মদিন উপলক্ষে রক্তদান করুন মুমূর্ষু মানুষের সাহায্যার্থে। হ্যাক ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সেক্রেটারি সেখ হাসিবুর রহমান মহাশয় জানান, রক্তবন্ধুর মত একটা প্রকল্প দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ুক।। এবং আসমাউল এর মত যুব সমাজ রক্তের বন্ধনে আবদ্ধে হয়ে হাজার হাজার মানুষের জীবন বাঁচানোর কাজে ব্রতী হোক। তিনি আরও বলেন কেবলমাত্র অন্যের সাহায্যার্থে নয় নিজেকে সুস্থ রাখতেও নিয়মিত রক্তদান করা একান্ত জরুরি।

সাধারণ মানুষকে রক্তদানে উদবুদ্ধ করতে নিজের আবেদনের সামঞ্জস্য বজায় রেখে আজ জন্মদিন উপলক্ষে ফুলেশ্বরের সঞ্জীবন ব্লাডব্যাংক-এ রক্তদান করলেন। “জন্মদিনে রক্তদান” এর মাধ্যমে সবার উদ্দেশ্যে বলতে চান; শারিরীক ভাবে সুস্থ্য, সবল প্রত্যেকটি মানুষ বিশেষ করে যুবক যুবতীদের রক্তদানের মতো মহান মানবিক কর্মে অংশগ্রহণ করা উচিত।