সিবিএসই বোর্ডে রাজ্যের প্রথম ও দেশের তৃতীয় মালদার সুমাইতা

0
cbi board e rajayer protham

নিজেস্ব প্রতিবেদ, টাইমস্ বাংলাঃ) ৯৯.৫০% পেয়ে রাজ্যে প্রথম দেশে তৃতীয়
সিবিএসই পরীক্ষায় দেশে তৃতীয় হয়ে মালদার শিক্ষাকে গোটা দেশে সামনের সারিতে তুলে আনল ঊষা মার্টিন স্কুলের ছাত্রী সুমাইতা লাইসা৷আজ পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর সুমাইতার এই ফলে উচ্ছ্বসিত তার পরিবার থেকে শুরু করে গোটা জেলার মানুষ৷এই সাফল্য সুমাইতার নিজেরই বলে জানিয়েছেন স্কুলের অধ্যক্ষ৷

মালদা শহরের মীরচকের বাসিন্দা সুমাইতা৷বাবা তোহিদুল ইসলাম হোমিও চিকিৎসক৷মালদা শহরের কৃষ্ণজীবন সান্যাল রোডে তাঁর চেম্বার৷তাঁর স্ত্রী কোহিনুর খাতুন সাধারণ গৃহবধূ৷তাঁদের তিন ছেলেমেয়ের মধ্যে সুমাইতাই সবার বড়ো৷তোহিদুল সাহেবরা গাজোলের বাসিন্দা৷ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার জন্যই সেখানকার পাট চুকিয়ে তাঁরা মীরচকে বাড়ি বানিয়ে বসবাস শুরু করেন৷ঊষা মার্টিন স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে ভর্তি করেন সুমাইতাকে৷ সেখান থেকেই এবার সে সিবিএসই পরীক্ষায় বসেছিল৷

৯৯.৫০ শতাংশ মার্কস পেয়েছে সুমাইতা৷তার কোনও স্থায়ী গৃহশিক্ষক ছিলেন না

সুমাইতা জানায়, প্রথম থেকেই স্কুলে প্রথম হত।৷তবে এই রেজাল্ট তার প্রত্যাশা ছিল না৷সে ৯৯.৫০ শতাংশ মার্কস পেয়েছে৷তার কোনও স্থায়ী গৃহশিক্ষক ছিলেন না৷মাস কয়েকের জন্য সে গৃহশিক্ষকের কাছে পড়েছে৷সে নিজের পড়াশোনা নিজেই করত৷বাবা-মায়ের সঙ্গে স্কুলের শিক্ষকরা তাকে সাহায্য করতেন৷তবে পড়ার জন্য তার নির্দিষ্ট কোনও সময়সীমা ছিল না৷যখন ইচ্ছে করত, পড়ত৷অবসর সময়ে সে গল্পের বই পড়ত৷টেলিভিশনও দেখত৷তবে অল্প সময়ের জন্য৷সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে শুধুমাত্র হোয়াটস্‌ অ্যাপে যোগাযোগ রয়েছে তার৷সে অংকে ১০০, সোশ্যাল স্টাডিজে ১০০, ইংরেজিতে ৯৯, বাংলায় ৯৯, সায়েন্সে ৯৯ ও কম্পিউটারে ১০০ পেয়েছে৷ভবিষ্যতে বাবার মতোই চিকিৎসক হতে চায় সুমাইতা৷ ভর্তির জন্য পরীক্ষা দিয়েছে আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটিতে৷

কোহিনুর খাতুন বলেন, মেয়ের সাফল্যে তাঁরা ভীষণ খুশি৷মেয়ে যে এত ভালো রেজাল্ট করতে পারবে, তা আশাই করেননি তাঁরা৷দেশে তৃতীয় ও রাজ্যে প্রথম হয়ে তাঁর মেয়ে তাঁদেরও মাথা অনেক উঁচু করে দিয়েছে৷একজন গৃহবধূ হিসাবে যতটা পেরেছেন, মেয়ের পড়াশোনায় সাহায্য করেছেন তিনি৷ঊষা মার্টিন স্কুলের অধ্যক্ষ সাক্ষর চক্রবর্তী জানান, স্কুলের পক্ষ থেকে তাঁরা এই ফলের জন্য সুমাইতাকে অভিনন্দন জানাচ্ছেন৷এই সাফল্যের কৃতিত্ব সম্পূর্ণ সুমাইতার৷ তাঁরা শুধু পাশে থেকে তাকে সাহায্য করেছেন৷তার প্রতিভা বহুমুখী৷শুধুমাত্র মার্কশিটে তা প্রকাশ করা যাবে না৷তিনি ছাত্রীর উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করেন৷

On the fani of the rabbit rain, a versatile poem