করোনা এড়াতে স্কুলে সাবান-স্যানিটাইজার পাঠানোর নির্দেশ জেলাশাসকদের

0
District administrators were ordered to send soap-sanitizers to the school to avoid corona

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে রাজ্যের সব সরকারি এবং সরকার পোষিত স্কুলে সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার পাঠানোর নির্দেশ দিল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। মিড ডে মিল প্রকল্পের টাকায় ওই সব সরঞ্জাম কিনে স্কুলগুলিতে পাঠানোর জন্য জেলাগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।জেলাশাসকদের তৎপরতার সঙ্গে এই নির্দেশ কার্যকর করতে বলা হয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তরের নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে মিড ডে মিলের তহবিলে স্যানিটাইজার বা সাবান কেনার টাকা না থাকলে অন্য কোনও খাত থেকে তা কিনে দ্রুত স্কুলগুলোকে পাঠাতে হবে।
স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তারা জানাচ্ছেন যে কোনও ধরনের সংক্রমণেই শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। স্কুলে একসঙ্গে বহু শিশু, কিশোর-কিশোরীরা থাকে। একজনের দেহে সংক্রমণ দেখা দিলে তা দ্রুত বাকিদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ার আশংকা থাকে। সেজন্যই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে এই বাড়তি সতর্কতা নেওয়া হচ্ছে।যদি কোন কারণে স্যানিটাইজার পাঠানো না হয় তবে নিদেন পক্ষে সাবান কিনে পাঠাতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের এক পদস্থ আধিকারিক এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘শুধু সাবান কিনে পাঠিয়ে দিলেই হবে না। তার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করাও জরুরি। মিড ডে মিল খাবার আগে প্রতিটি পড়ুয়া সাবান দিয়ে যথাযথভাবে ধুচ্ছে কিনা তাও দেখতে হবে। হাতে একটু সাবান লাগিয়ে জলে ধুয়ে ফেললে কাজ হবে না। দু হাতের তালুতে সাবান ভাল করে নিয়ে তা দু হাত দিয়ে কিছুক্ষণ ডলতে হবে। এরপর হাতের প্রতিটি আঙুলের ভাঁজ ভাল করে ডলতে হবে। একই ভাবে হাতের তালুর ঠিক বিপরীত অংশেও ভালোভাবে সাবান দিয়ে ঘষতে হবে। সব মিলিয়ে কব্জির আগে পর্যন্ত ভালোভাবে সাবান দিয়ে ঘষে পরিষ্কার জীবানু মুক্ত জলে সে হাত ভালোভাবে ধুয়ে তবেই খাবার খেতে হবে।’

চিকিৎসকরা বলছেন, শুধু করোনা সংক্রমণ ঠেকানোর জন্যেই নয় যে কোন রোগ প্রতিরোধে প্রত্যেককে প্রতিবার হাত দিয়ে খাবার খাওয়ার আগে ভালোভাবে হাত ধোয়া জরুরি। তাতে সব রকম রোগ থেকেই রক্ষা পাওয়া যায়। পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী বলেন, ‘ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের স্যানিটাইজার বা সাবান কিনে স্কুলগুলিতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়ে দেওয়া হয়েছে। আজ কালের মধ্যেই তা পৌঁছে যাবে’। জেলা শিক্ষা দফতরের এক আধিকারিক বলেন, ‘পড়ুয়ারা কীভাবে হাত ধোবেন তা শিক্ষক শিক্ষিকাদের বুঝিয়ে দেওয়া হবে। তা তাঁরা পড়ুয়াদের বুঝিয়ে দেবেন’। স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা বলছেন, অসুস্থ দেহে ভাইরাস সংক্রমণ দ্রুত হয়। তাই সবাইকে সুস্থ রাখতেই এই পদক্ষেপ। একই সঙ্গে পড়ুয়ারা যাতে নিয়মিত নখ কেটে স্কুলে আসে তাও দেখতে হবে। নখের তলার ময়লা খাবারের সঙ্গে পেটে গিয়ে অসুস্থতা বাড়ায়। সাবান পাঠাতে বলা হয়েছে বলে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বাড়তি সতর্কতা হিসেবেই এই পদক্ষেপ।,