বাবাসাহেব আম্বেদকরকে মন থেকে নয়, বাধ্য হয়েই ভারতরত্ন দেওয়া হয়েছিল, দাবি আসাদুদ্দিন ওয়াইসির

0

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : ১৯৫৬ সালের ৬ ডিসেম্বর মৃত্যু হয় আম্বেদকরের। ১৯৯০ সালে মরণোত্তর ভারতরত্ন দেওয়া হয় তাঁকে। তৎকালীন ভিপি সিং সরকার আম্বেদকরকে এই সম্মান দেন।অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদ-উল-মুসলিমেন প্রধান আসাদুদ্দিন ওয়াইসির বক্তব্য, কিন্তু ওয়াসির বক্তব্য, মন থেকে ভারতরত্ন দেওয়া হয়নি ভারতীয় সংবিধানের প্রণেতাকে। চাপে পড়ে, একপ্রকার বাধ্য হয়েই এই কাজ করেছিল সরকার। সদিচ্ছা বা মন থেকে তাঁরা এই কাজ করেনি।মহারাষ্ট্রের কল্যাণে এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন ওয়াসি। এআইএমআইএম প্রধান প্রশ্ন তুলেছেন, “আমাকে বলতে পারবেন, এতদিন যত জনকে ভারতরত্ন সম্মান দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে কতজন দলিত, আদিবাসী, মুসলমান বা উচ্চবর্ণের মানুষ এই সম্মান পেয়েছেন? তাই বাবাসাহেব আম্বেদকরকেও বাধ্য হয়েই ভারতরত্ন দিতে হয়েছে৷ সদিচ্ছায় এই সম্মান দেওয়া হয়নি৷”
উল্লেখ্য, প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ও কংগ্রেস নেতা প্রণব মুখোপাধ্যায়, বিজেপি নেতা নানাজি দেশমুখ ও প্রয়াত সঙ্গীতশিল্পী ভূপেন হাজারিকাকে ভারতরত্ন দেওয়া হবে। ভারতরত্ন সম্মানের জন্য প্রণব মুখোপাধ্যায়ের নাম ঘোষণা হওয়ার পর অনেকে রাজনীতির ইঙ্গিত খুঁজতে শুরু করেছেন। শুক্রবারই দিল্লির এক আপ নেতা প্রণববাবুর ‘ভারতরত্ন’ সম্মান পাওয়া নিয়ে টুইট করেন৷ তিনি লিখেছেন ‘সঙ্ঘের শাখায় এক বার যাও, আর রত্ন হয়ে যাও।’
ওয়াসির এই মন্তব্যকে টেনে এনে সুর চড়িয়েছে মায়াবতীর মহুজন সমাজবাদী পার্টিও। বসপার তরফে দলের প্রতিষ্ঠাতা কাঁসি রামকে ভারতরত্ন দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে। বসপা নেতা সুধীন্দ্র ভদোরিয়া বলেন, “সবাই জানেন যখন আম্বেদকরকে ভারতরত্ন দেওয়া হয় তখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ভিপি সিং। বাবাসাহেব আম্বেদকরকে ভারতরত্ন দেওয়ার জন্য কাঁসি রাম ও মায়াবতীই জোর করেছিলেন। তাই আমরা দাবি জানাচ্ছি, কাঁসি রামকেও ভারতরত্ন দেওয়া হোক।”