শনিবার থেকে রাজ্যের প্রতি বিধানসভা কেন্দ্রে শুরু হচ্ছে ‘বাংলার গর্ব মমতা’ কর্মসূচি

0
'Garbha Mamata' program starts in the Assembly constituency in the state from Saturday

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : শনিবার থেকে জেলায় জেলায় শুরু হচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসের নতুন কর্মসূচি ‘বাংলার গর্ব মমতা’ । এদিন রাজ্যের ২৯৪ বিধানসভায় তৃণমূলের নির্বাচিত বিধায়ক বা সমন্বয়কারীরা কর্মী সম্মেলন ও সাংবাদিক বৈঠক করে এই কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক সূচনা করবেন বলে দলের তরফে জানানো হয়েছে।

আসন্ন পুরসভা নির্বাচন ও ২০২১ এ বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে তৃণমূল কংগ্রেসের ব্যানারে গত সোমবার এই কর্মসূচির সূচনা করেন দলনেত্রী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে জানানো হয়েছে ১০ মে পর্যন্ত দলের এই জনসংযোগ কর্মসূচি চলবে । এই কর্মসূচির আওতায় ৭৫ হাজারেরও বেশি দলীয় নেতা ও কর্মী রাজ্যের ১৫ হাজার জনবসতিতে যাবেন ও রাজ্যের আড়াই কোটি মানুষের কাছে পৌঁছবেন বলে লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে তৃণমূলের যোগাযোগকে পুনরুজ্জীবিত করে তোলাই এই কর্মসূচির উদ্দ্যেশ্য। তিন পর্যায়ে হবে এই কর্মসূচি। । দিদিকে বলো প্রচার শুরু হয়েছে প্রায় সাত মাস হল। সেই প্রচার বন্ধ হচ্ছে না। তবে একুশের ভোটের দিকে তাকিয়ে সোমবার নতুন ক্যাম্পেন শুরু করে দিলেন প্রশান্ত কিশোর ও তাঁর টিম-‘বাংলার গর্ব মমতা’।


লোকসভা ভোটে বাংলায় ৪২টি আসনের মধ্যে বিজেপি ১৮ আসন জিতে নেওয়ার পরই উদ্বেগের স্রোত বয়েছিল তৃণমূলের অন্দরে। কারণ তৃণমূল কর্মীদের লাগামছাড়া ঔদ্ধত্য ও দুর্নীতিই লোকসভা ভোটের শোচনীয় ফলাফলের জন্য দায়ী বলে অভ্যন্তরীণ তদন্তে উঠে এসেছে। নিচুতলার মানুষের সঙ্গে কোথায় ও কীভাবে সেই বিচ্ছিন্নতা তৈরি হয়েছিল দলের ভিতরে। দূরত্ব কীভাবে মুছে যায় সেজন্য সাহায্য নেওয়া শুরু হয়েছিল ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোর ও তাঁর সংস্থা আই-প্যাকের। তৃণমূলের প্রচারের দায়িত্ব পেয়েই প্রশান্ত কিশোর প্রথমে দিদিকে বলো কর্মসূচির সূচনা করেছিলেন। তা ‘সফল’ হওয়ার পর সোমবার শুরু হল ‘আমার গর্ব মমতা’ প্রচার।