বিহারে ধরা পড়লো দুই জেএমবির দুই সক্রিয় সদস্য, রয়েছে পুলিশি হেফাজতে

0

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : বিহারে বেশ কিছুদিন ধরেই নব্য জেএমবি-র (জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ) কিছু সদস্যেরা ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে, এমন তথ্য রাজ্য পুলিশের গোয়েন্দা শাখার কাছে আগেই ছিল। তাই নজরদারিও চলছিল সেই মতোই। রবিবার রাতে পটনা জাংশনের কাছ থেকে জেমবি-র দুই সক্রিয় সদস্যকে পাকড়াও করল পুলিশ।ধৃতদের নাম খাইরুল মণ্ডল এবং আবু সুলতান। পুলিশ জানিয়েছে, পটনা জাংশনের একটি গেস্ট হাউসের কাছে সন্দেহজনকভাবে দুই যুবককে ঘোরাঘুরি করতে দেখেই তাদের আটক করে পুলিশ। প্রথমে তারা জানায় যে, তারা আসলে পর্যটক। বুদ্ধ গয়ায় ছিল বেশ কিছুদিন। দু’জনেরই কথাবার্তা অসংলগ্ন ছিল। পরে পুলিশি জেরায় তারা স্বীকার করে, দু’জনেই নব্য জেএমবি-র সক্রিয় সদস্য। সিরিয়ায় আইএস শিবিরে যোগ দিতে যাচ্ছে। তদন্তকারী অফিসাররা জানিয়েছেন, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পটনা জাংশনের কাছের গেস্ট হাউসগুলিতে নজর রেখেছিল পুলিশ। ধৃত এই দু’জনের চালচলন সন্দেহজনক হওয়ায় তাদের গ্রেফতার করা হয়। পটনায় নব্য জেএমবি-র আরও সদস্য আত্মগোপন করে রয়েছে কিনা তার খোঁজ চলছে। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এবং জাতীয় তদন্তকারী সংস্থাকেও ধৃতদের বিষয়ে জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিহার এসটিএফ সূত্রে খবর, ধৃত দু’জনের কাছেই কোনও বৈধ পাসপোর্ট ছিল না। প্রথমে তারা কলকাতায় কিছুদিন ঘাঁটি গেড়ে ছিল। সেখান থেকে পৌঁছয় বুদ্ধ গয়ায়। গত ১১ দিন তারা সেখানেই ছিল। এ দেশে থাকা নব্য জেএমবির সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগের পাশপাশি নতুন সদস্য তৈরির কাজও করছিল ধৃতেরা। ধার্মিক স্থানগুলিতে পুলিশের নজর কম থাকবে মনে করে, সেখানেই তাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ করত নব্য জেএমবি-র এ দেশে থাকা সদস্যেরা। গোয়েন্দাদের অনুমান, সদস্য সংখ্যা বাড়িয়ে সিরিয়ায় আইএসে যোগ দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল তারা। সেই সূত্রেই থাইরুল ও আবু সুলতানের বাংলাদেশ থেকে পটনায় আসা।