মাত্র ৮ দিনে ৩ থেকে ৪ লক্ষে পৌছালো দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, তবে সুস্থতার হার ৫৫.৪৮%

0

মাত্র ৮ দিনে ৩ থেকে ৪ লক্ষে পৌছালো দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, তবে সুস্থতার হার ৫৫.৪৮%

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : মাত্র ৮ দিনে দেশে করোনা সংক্রমণ ৩ লক্ষ থেকে ৪ লক্ষে পৌঁছে গেলো। আরো বিস্তারিত বলতে গেলে গত ৩৩ দিনে দেশে ৩ লক্ষের উপর মানুষ করোনায় আক্রান্ত হলেন। করোনা সংক্রমনের এই বৃদ্ধির হার রীতিমত চিন্তার ভাজ ফেলেছে চিকিৎসক, বিশেষজ্ঞদের কপালে। বৃদ্ধির এই হার চলতে থাকলে দেশে এই সংক্রমণ কোথায় গিয়ে থামবে তাই নিয়ে প্রবল দুশ্চিন্তায় সাধারণ মানুষও। দেশে আনলক পর্ব শুরু হওয়ার পর থেকেই হু হু করে বাড়ছে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা। সংক্রমনের নিরিখে রোজ রেকর্ড গড়ছে দেশ। শনিবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় সারা দেশে ১৫ হাজার ৪১৩ জন করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। প্রাণ হারিয়েছেন ৩০৬ জন কোভিড রুগী। ফলে এই নিয়ে দেশে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৪ লক্ষ ১০ হাজার ৪৬১ জন, মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৩ হাজার ২৫৪ জন।

তবে আশার কথা দেশে করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ও বর্তমানে চিকিৎসাধীনের সংখ্যার থেকে অনেক বেশি। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে দেশে কোভিড সক্রিয় রুগীর সংখ্যা ১ লক্ষ ৬৯ হাজার ৪৫১। এখনো পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লক্ষ ২৭ হাজার ৭৫৫। একজন সুস্থ হয়ে দেশান্তরী হয়েছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে দেশে করোনা থেকে সুস্থতার হার ৫৫.৪৮%। ভারত কোভিড সংক্রমনের নিরিখে বিশ্বে চতুর্থ ও মৃত্যুর নিরিখে বিশ্বে অষ্টম স্থানে আছে।

দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যু দুই ক্ষেত্রেই শীর্ষে মহারাষ্ট্র। এই রাজ্যে এখনো পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ২৮ হাজার ২০৫ জন, প্রাণ হারিয়েছেন ৫ হাজার ৯৮৪ জন। তামিলনাড়ুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬ হাজার ৮৪৫ জন, প্রাণ হারিয়েছেন ৭০৪ জন। রাজধানী দিল্লিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬ হাজার ৭৪৬ জন , প্রাণ হারিয়েছেন ২ হাজার ১১২ জন। গুজরাটে আক্রান্ত হয়েছেন ২৬ হাজার ৬৮০ জন, প্রাণ হারিয়েছেন ১ হাজার ৬৩৮ জন। উত্তরপ্রদেশে আক্রান্ত হয়েছেন ১৬৫৯৪ জন, প্রাণ হারিয়েছেন ৫০৭ জন। রাজস্থানে আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ হাজার ৫৩৬ জন, মারা গেছেন ৩৩৭ জন। পশ্চিমবঙ্গে আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ হাজার ৫৩১ জন, মারা গেছেন ৫৪০ জন, মধ্যপ্রদেশে আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজার ২২৩ জন, প্রাণ হারিয়েছেন ৫০১ জন। অন্যান্য রাজ্যগুলিতে সংক্রমণ ও মৃত্যু তুলনায় অনেক কম।