করোনা আবহের মধ্যেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রনে তৎপর কলকাতা পুরসভা, সাধারণ মানুষকে দায়িত্বগ্রহণের আবেদন

0

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : করোনা নিয়ে সতর্কতার মধ্যেই শহরে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে তৎপর হচ্ছে কলকাতা পুরসভা। আগামী সপ্তাহ থেকে ডেঙ্গু নিয়ে ব্যাপক সচেতনতা প্রচারে নামছে তারা। সোশ্যাল মিডিয়া, মাইকে করে প্রচার ছাড়াও, বাড়ি বাড়ি লিফলেট বিলি করে শহরবাসীকে সপ্তাহে অন্তত ১০ মিনিট সময় ব্যয় করে বাড়ির ভেতর ও আশেপাশে জমে থাকা জল ও জঞ্জাল পরিষ্কার করতে বলা হবে। পুরপ্রশাসকমন্ডলীর চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম শনিবার সাংবাদিকদের জানান, করোনা নিয়ে সতর্কতার জন্য বর্তমানে পুরকর্মীদের বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। ফলে বাড়ির মধ্যে কোথাও জল জমে আছে কিনা বা জঞ্জাল পরে আছে কিনা, তা তারা দেখতে পাচ্ছেন না। তাই করোনা আবহে প্রতিটি শহরবাসীকে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে। আশেপাশের বাড়িতেও কোথাও জল বা জঞ্জাল জমে থাকলে প্রতিবেশীদের সেই বিষয়ে সজাগ করতে হবে। পুরকর্মীরা এলাকায় এলাকায় ঠিকমত কাজ করছেন কিনা, প্রচার ঠিকমত হচ্ছে কিনা ওয়ার্ড কো-অর্ডিনেটাররা সেই দিকে লক্ষ্য রাখবেন। ফিরহাদ হাকিম বলেন, নির্মাণকাজ চলছে এমন জায়গা, বাণিজ্যিক বহুতলগুলিতে কড়া নজর রাখা হচ্ছে। গাফিলতি দেখলেই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে, গতবছরের তুলনায় চলতি বছরে এখনো পর্যন্ত শহরে ডেঙ্গু পরিস্থিতি অনেকটাই ভালো বলে স্বাস্থ্যবিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুরপ্রশাসকমন্ডলীর সদস্য অতীন ঘোষ জানিয়েছেন। তিনি আজ বলেন, চলতি বছরে এখনো পর্যন্ত শহরে ১০০ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন, যেখানে গতবছর এই সময়ের মধ্যে ৬০৫ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি বলেন, কোথাও আমফানের ঝড়ে ভেঙে যাওয়া গাছের ডাল -পালা পরে আছে কিনা, নতুন করে জল জমার জায়গা হচ্ছে কিনা সেগুলি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারি, বেসরকারি অফিসগুলির উপর নিয়মিত নজরদারি চালানো হচ্ছে। এর পাশাপাশি পিএমইউ, সিভিল,বিল্ডিং,উদ্যান ও জঞ্জাল সাফাই বিভাগের সঙ্গে সমন্বয় করে স্বাস্থ্য বিভাগ প্রতি সপ্তাহে প্রতিটি বোরোতে বৈঠক করে মশার লার্ভা জন্ম নিতে পারে এমন স্থানগুলি চিহ্নিত করে তা পরিষ্কার করার উদ্যোগ নিচ্ছে বলে অতীনবাবু জানান।