নোবেল প্রাপ্তির জন্য রাহুল সিনহাকে কটাক্ষ করে বিদেশী বউ বিয়ে করার পরামর্শ দিলেন নোবেলজয়ীর মা

0
Nobel Laureate's mother advises Rahul Sinha to get married to a foreign wife

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : “উনি আরেকটা বিয়ে করুন। তাহলে দেখা যাবে উনি ভারতে আরেকটা নোবেল আনতে পারেন কিনা! দেশে আরও নোবেল এলে আমাদের ভালই হবে”। সদ্য নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিত্‍ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা রাহুল সিনহার দ্বিতীয় স্ত্রী তত্বের মন্তব্যকে এইভাবেই কটাক্ষ করলেন নোবেল জয়ীর মা নির্মলা বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রসঙ্গত অভিজিত বাবুর নোবেল পাওয়ার প্রসঙ্গে রাহুল সিনহা বলেছেন, “যাঁর দেখছি দ্বিতীয় স্ত্রী বিদেশি, তিনিই নোবেল পেয়ে যাচ্ছেন। আমি জানি না এটা নোবেল পাওয়ার জন্য বিশেষ কোনও ডিগ্রি কিনা”| রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলও এর আগে অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন| রেলমন্ত্রীর সেই মন্তব্যকে সমর্থন জানাতে গিয়ে শুক্রবার রাহুল সিনহা বলেন, “পীযূষ গোয়েলের বক্তব্য ঠিক। কারণ এঁরা অর্থনীতিকে বামপন্থী নীতিতে রাঙিয়ে দিয়েছেন। অর্থনীতিকে বামপন্থার রীতিতে চালাতে চায়। বামপন্থার রীতি এই দেশেই অচল হয়ে গিয়েছে”।প্রসঙ্গত অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘বামপন্থী ঘেঁষা’ বলে মন্তব্য করেছিলেন পীযূষ গোয়েল|

সোমবার বিজেপি নেতার এই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করেন অভিজিত বাবুর মা| তিনি জানান, “তিনি ওটা বলে থাকলে খুবই ভালো। খুব মজাদার বিষয়। তিনি একটা বিয়ে করুন। দেখুন বিয়ে করে। বিদেশিনীদের তো আর অভাব নেই। যে কোনও একজন বিদেশিনীকে বিয়ে করুন। এসথার ডাফলোর মতো মেয়ে পেয়ে যাবেন কিনা তা আমি বলতে পারছি না। আর বিদেশিনীকে বিয়ে করে যদি নোবেল পাওয়া যায়, তাহলে পান”|

যদিও বিজেপি নেতার এই মন্তব্যকে সমর্থন জানায়নি কোনও মহলই| রেলমন্ত্রীর মন্তব্যের একটি গন্ডি থাকলেও থাকলেও রাহুল সিনহার কথা শালীনতার গন্ডি পার করে গিয়েছে বলেই মত পর্যবেক্ষকদের| দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা নিয়ে কেন্দ্রকে বহুবার কোনঠাসা করেছেন অর্থনীতিতে সদ্য নোবেলজয়ী অভিজিৎ| এই বিষয়ে পর্যবেক্ষকদের মত, গণতান্ত্রিক দেশে মতের অমিল হবেই| দেশের অর্থনীতি নিয়ে তাঁর ভিন্ন মত থাকতেই পারে| তাই বলে বিজেপি নেতৃত্ব তাঁকে ব্যক্তিগত আক্রমন করতে পারেনা কোনওভাবেই|

রাহুল সিনহার এই মন্তব্যকে বিরোধিতা করেছেন বিরোধী নেতারাও| এই প্রসঙ্গে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “কাউকে ব্যক্তিগত ভাবে আক্রমণ করে তাঁর সাফল্যকে এ ভাবে ছোট করার চেষ্টা ঠিক নয়। অভিজিৎ বাংলার গর্ব, বাঙালির গর্ব”। বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তীও এই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানান।