রাজ্যের হাই মাদ্রাসায় নিয়োগ হওয়া ১২ জন ভূগোল শিক্ষকের মধ্যে নেই একজনও মুসলিম ! তবে কি এবার হিন্দু তোষণ !

0

বিশেষ প্রতিবেদন,টাইমস্ বাংলা: রাজ্যের মাদ্রাসা বোর্ডের অধীন ভূগোল শিক্ষকের স্থায়ী পদের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হলেন না একজনও মুসলিম ! শুক্রবার রাজ্য পাবলিক সার্ভিস কমিশনের তরফে ইংরেজি মাধ্যম সরকারি হাই মাদ্রাসাগুলিতে ভূগোল বিষয়ে স্থায়ীপদে নিয়োগ হওয়া সহকারি শিক্ষক- শিক্ষিকার ১২ জনের যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে তাতে আশ্চর্যজনকভাবে নেই একজনও মুসলিম। ১২ জনের প্রত্যেকেই হিন্দু। পাবলিক সার্ভিস কমিশনের প্রকাশিত এই তালিকা দেখে বৈষম্যের অভিযোগ করছেন কেউ কেউ। মূলত মুসলিম ছাত্র ছাত্রীদের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাদ্রাসায় একজনও মুসলিম শিক্ষক পদের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত না হওয়ার ব্যাপারটি ইতিমধ্যেই সন্দেহের চোখে দেখতে শুরু করেছেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একাংশ। তবে কি রাজ্যে বিজেপিকে ঠেকাতে হিন্দু তোষণ শুরু করলো এই রাজ্যের সরকার। তাও এভাবে। অনেক মাদ্রাসাতে হিন্দু ছাত্র ছাত্রীও পরে। তাদের অনেকেই প্রতিবছর বোর্ডের পরীক্ষায় ভালো ফল করে। মুসলিমদের পাশাপাশি হিন্দু শিক্ষক- শিক্ষিকারাও রাজ্যের মাদ্রাসাগুলিতে পড়ান। কিন্তু শিক্ষক নিয়োগের একটি তালিকাতে একজনও মুসলিম চাকরিপ্রার্থীর নাম না থাকায়, বিষয়টি অবিশ্বাস্য ঠেকছে সংখ্যালঘুদের একাংশের।

West bengal psc

তবে সংখ্যালঘুদের আরেকটি অংশ মনে করছেন, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি তাদের রাজনৈতিক স্বার্থে এই সরকারের বিরুদ্ধে মুসলিম তোষণের অভিযোগ এনেছে। পিছিয়ে থাকা মুসলিম সমাজের মানোন্নয়নের জন্য প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসা তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের যতটা কাজ করা উচিত ছিল, তা তারা এখনো পর্যন্ত করতে পারেননি। এখনো এ রাজ্যের একজন মুসলিম ছেলে বা মেয়ে পড়াশোনা ও সরকারি চাকরির পরীক্ষার ব্যাপারে ততটা সুযোগ সুবিধা পায় না, যা হিন্দু ঘরে জন্মানো একজন ছেলে বা মেয়ে পায়। তাই রাজ্যের সংখ্যালঘুরা মুসলিম ছাত্র ছাত্রীদের প্রতি বঞ্চনার বিষয়টি দৃষ্টি আকর্ষণ করে, এর জন্য রাজ্য সরকারকে কাঠগড়ায় দাড় করাচ্ছেন।