পুরুলিয়ার এক এগারো বছরের মাদ্রাসা ছাত্রকে চাপ দিয়ে ‘জয় শ্রীরাম’ বলানোর চেষ্টা, না বলায় মারধর করলো যুবকেরা

0
Purulia's eleven-year-old madrasa student is under pressure to say 'Jai Sriram'

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : অন্যান্য রাজ্য গুলির মত এরাজ্যেও জয় শ্রী রাম স্লোগান কাউকে দিয়ে জোর করে বলানো আর না বললেই মার এই ট্রেন্ড টা যেন দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। এবার এই ইস্যুর শিকার হল বছর এগারোর এক মাদ্রাসা-ছাত্র। ঘটনা টি ঘটেছে, পুরুলিয়ার নিতুড়িয়ায়। কিশোরের অভিযোগ, বুধবার বিকেলে চার যুবক পথ আটকে তাকে ‘জয় শ্রীরাম’ বলার জন্য চাপ দেয়। রাজি না হওয়ায় তাকে মাটিতে ফেলে মারা হয়। ছাত্রটি জানায়, এক বন্ধুকে বাসে তুলে দিয়ে মাদ্রাসায় ফিরছিল সে। পথ আটকায় বছর তিরিশের জানা চারেক। প্রথমে পরিচয় জানতে চায়। তার পর ‘জয় শ্রীরাম’ বলার জন্য চাপাচাপি করে। তার অভিযোগ, ‘‘ওদের কথা না শোনায় লাথি, ঘুষি মারে। কাকুতি-মিনতি করছিলাম। শোনেনি। পরে ওদের এক জন বলল, ‘খারাপ কিছু হলে ফেঁসে যাব’। তার পরে মার থামে।’’ ঘটনায় ওই ছাত্রটি যথেষ্ট আতঙ্কিত। মাদ্রাসার মৌলানা বলেন, ‘‘রাত পর্যন্ত ঘুমোচ্ছে না দেখে ছেলেটাকে ডেকে কথা বলি। তখনই জানলাম, কী কাণ্ড হয়েছে।’’ তিনি আরো বলেন, ‘‘বুধবার যা ঘটল, তার পরে খুব অস্বস্তি হচ্ছে।’’

ছেলেটিকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যান তার বাবা। তিনি বলেন, ‘‘কোন ভরসায় মাদ্রাসায় ছেলেকে রাখব? যদি আরও খারাপ কিছু হয়! বাড়ি ফিরেও ছেলে ভয়ে সিঁটিয়ে রয়েছে।” বৃহস্পতিবার নিতুড়িয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ছাত্রটির বাবা। পুলিশ সুপার তদন্ত হচ্ছে বলে জানালেও ঘটনার ২৪ ঘণ্টা পরেও কেউ গ্রেফতার হয়নি।
তৃণমূলের জেলা সভাপতি শান্তিরাম মাহাতোর দাবি, ‘‘বিজেপি উগ্র হিন্দুত্বের জিগির তুলে সন্ত্রাস চালাচ্ছে।” বিজেপির জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর পাল্টা দাবি, ‘‘বিজেপির ভাবমূর্তিতে কালি ছেটাতে তৃণমূল এই কাণ্ড ঘটিয়েছে।’’