পুরুলিয়ার জনসভায় রাহুল কেন মমতাকে পাশকাটিয়ে গেলেন?

0
Rahul in the Purulia rally, why did Mamata pass by?

মহম্মদ ঘোরী শাহ্

সারাদেশে কংগ্রেসের প্রতিপক্ষ বিজেপি ঠিকই, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের মূল প্রতিপক্ষ বিজেপিই। কোথাও কোথাও তৃণমূলের সঙ্গে কংগ্রেসের টক্কর হলেও তার তীব্রতা অনেকটাই কমিয়ে দিয়েছেন কিছু জনপ্রিয় কংগ্রেস নেতা তৃণমূলে যোগদিয়ে।তবুও কংগ্রেস সুপ্রিমো রাহুল গান্ধীকে পুরুলিয়ার জনসভায় আশাবাদী মনে হল,তিনি পশ্চিমবঙ্গ থেকেও কিছু সংখ্যক আসন প্রত্যাশা করছেন।আর এই প্রত্যাশা পূরণ করতে হলেই তাঁর দলকে লড়াই করতে হবে তৃণমূলের সঙ্গে,বিজেপির সঙ্গে নয়।প্রত্যাশা থাকলেও তিনি যে লড়াইয়ে প্রস্তুত একবারও মনে হল না পুরুলিয়াতে।আগাগোড়া তৃণমূলকে ছেড়ে বিজেপির উপরেই আক্রমণ শানালেন তিনি।কিন্তু কেন?

লোকসভা নির্বাচনের শেষ পর্বের কাছাকাছিতে তাঁকে খুবই উৎফুল্লই মনে হচ্ছিল।’হারাবো’ শব্দটা ‘হারাচ্ছি’ তে প্রত্যয়ের সঙ্গেই পরিবর্তিত হয়েছে।তাহলে কি তিনি আশাবাদী,কংগ্রেস একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা পাচ্ছে!আর না পেলেও কোথাও কি বুনন শুরু হয়েছে অ-বিজেপি কোনদল বা দলগুলো কংগ্রেসের পাশে থাকবে? উত্তরটা কিন্তু এই মুহুর্তেই স্পষ্ট নয়।তবে পুরুলিয়াতে এসে এখানকার প্রতিপক্ষ তৃণমূলের বিরোধীতা না করে বরং মমতা বন্দোপাধ্যায়কে সমীহ করে রাহুলের প্রত্যাবর্তনটাই উত্তরের কিছুটা ইংগিত বহন করে।

আরো পড়ুন :   তেজ বাহাদুর ও তাঁর ছেলেকে খুনের হুমকি দিয়েছিলো বিজেপি, প্রকাশ্যে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য
আরো পড়ুন :   বিয়েবাড়িতে চেয়ারে বসে খাওয়ায় দলিত তরুণকে পিটিয়ে মারল উচ্চবর্ণের মানুষজন

 

মমতা বন্দোপাধ্যায় সাম্প্রদায়িক শক্তিগুলোর প্রবল বিরোধী। যদিও একসময় এনডিএ জোটের রেলমন্ত্রী ছিলেন।তবে সেটা অতীত।এখন তাঁর সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে লড়াইটা মজ্জাগত হয়ে পড়েছে। এই কারনেই কি রাহুল গান্ধী নিরব হলেন?

তবে তেলেঙ্গানা মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখরে রাওয়ের নেতৃত্বে অ-বিজেপি ও অ-কংগ্রেসীদের ফ্রন্টেও মমতা বন্দোপাধ্যায় একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।তবুও মনেহল কে চন্দ্রশেখর- বিজয়ন বৈঠক এবং তারপর চন্দ্রশেখর-রাহুল বৈঠকের পর হয়তো রাজনৈতিক যুদ্ধবিরত’র স্বাক্ষর স্বাক্ষরিত হলেও হতে পারে।

 

On the fani of the rabbit rain, a versatile poem