মমতা ব্যানার্জীর অনুপ্রেরণায় স্বরূপনগরের উন্নয়নের নতুন কারিগর পঞ্চায়েত সমিতির প্ৰধান সংগীতা কর

0

নিজস্ব প্রতিবেদন,টাইমস্ বাংলা,স্বরুপনগর : ৩৪ বছর পর রাজ্যে নতুন সরকার তৃনমুল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর গ্রামের মানুষের অনেক প্রত্যাশা ছিল। ৩৪ বছর পরও পাকা ঢালাই রাস্তা ,পানীয় জল , আলোর মত ন্যুনতম প্রাথমিক পরিষেবার দাবি গ্রামবাংলার মানুষ করেছিল এই সরকারের কাছে। তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের ৯ বছরে তা পেয়েছে গ্রামের মানুষ। এই প্রাথমিক পরিষেবা দেওয়াই নয়, গ্রামীন বেকার যুবক যুবতীদের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে গ্রামীন অর্থনীতিকেও সুদৃঢ় করেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার।

Sangita kar tmc swarupnagar
সংগীতা কর

উত্তর চব্বিশ পরগনার বসিরহাট মহকুমার অধীন স্বরূপনগর ব্লক। স্বরূপনগর ব্লক পঞ্চায়েত সমিতির অধীনে ১০ টি গ্রাম পঞ্চায়েত আছে। ২০১৮ সাল থেকে ব্লকের প্রভূত উন্নয়ন করেছে তৃনমুল কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন স্বরুপনগর পঞ্চায়েত সমিতি। এই উন্নয়নের কারিগর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সংগীতা কর। মাত্র ১ বছরের বেশি কিছু সময়ের মধ্যেই এমএসডিপি প্রকল্পের অর্থে ব্লকের গ্রামে হয়েছে একের পর এক রাস্তা, হয়েছে ঢালাই, পাকা রাস্তা। বর্ষা হলে আর কাঁচা রাস্তায় এক হাটু জল ও কাদার মধ্যে দিয়ে গ্রামবাসীকে হাটতে হয় না। পানীয় জলের সমস্যা অনেকটাই মেটানো সম্ভব হয়েছে। এই অল্প সময়ের মধ্যেই প্রায় ২০০ টি টিউবওয়েল বসেছে ব্লকের বিভিন্ন গ্রামে। জেলা পরিষদের উদ্যোগে স্থানীয় বেকার যুবক যুবতীর কর্মসংস্থানের জন্য কর্মতীর্থও করা হয়েছে। পঞ্চদশ অর্থ কমিশনের অর্থ আসলে বার্ষিক কাজের পরিকল্পনা করার পর ব্লকের প্রতিটি গ্রামে পরে থাকা উন্নয়নের কাজ সম্পাদিত হবে বলে জানালেন সংগীতা দেবী। এর আগে সংগীতা কর এই ব্লকের অধীন তেপুল মির্জাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান হিসেবে ২০১৩ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত কাজ করেছেন। সেই পাঁচ বছরে ঐ গ্রামে প্রচুর নতুন রাস্তা, টিউবওয়েল, রাস্তার পাশে আধুনিক হাই মাস্ট লাইটের বাতিস্তম্ভ, এলাকাবাসীর দাবি মেনে শ্মশানও করেছেন। তার স্বামী নারায়ণ চন্দ্র কর বর্তমানে তেপুল মির্জাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান ও স্বরূপনগর পশ্চিম ব্লকের সভাপতি। সংগীতা কর বললেন, ” ১৯৯৮ সাল থেকেই দল করি।তৃনমুল কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যানার্জীর আদর্শে আমি অনুপ্রাণিত। তাঁর দেখানো উন্নয়নের পথেই বাংলা আজ বিশ্ববাংলায় পরিণত হয়েছে। আমরা তাঁর উন্নয়নের সঙ্গী। স্বরূপনগরকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আরো উন্নয়নের কাজ করতে হবে আমাদের।”