সন্ত্রাস নিয়ে কড়া অবস্থান কেন্দ্রের, জালেন শাহ্

0
Strict position on terrorism, Jalena Shah

টাইমস বাংলা,ওয়েব ডেস্কঃ প্রথম নিরাপত্তা সংক্রান্ত বৈঠকে বসেই কেন্দ্রের কড়া অবস্থান স্পষ্ট করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ জম্মু কাশ্মীরে জিরো টেরর পলিসি নিয়ে চলতে চাইছে কেন্দ্র বলে জানান অমিত৷ এদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্র গোয়েন্দা সংস্থা ও নিরাপত্তা সংস্থাগুলির প্রধানরা৷ মূলত জম্মু কাশ্মীর, কেরালা ও মাওবাদী অধ্যুষিত এলাকাগুলির পর্যালোচনা বৈঠক ছিল এটি৷

আন্ত: রাজ্য সীমানাগুলিতে পাচার সংক্রান্ত আলোচনাও উঠে আসে এদিনের বৈঠকে৷ সূত্রের খবর কাশ্মীর জুড়ে জিহাদি কার্যকলাপ ও মাওবাদী হামলার বাড়বাড়ন্তের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি৷ শ্রীলঙ্কায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণের পর নিরাপত্তার কেন্দ্র বিন্দুতে রয়েছে কেরালা৷ এদিন কেরালার উপকূলবর্তী এলাকার নিরাপত্তা নিয়ে বিশেষভাবে আলোচনা হয় বৈঠকে৷

এদিনের বৈঠকে ছিল জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সচিব রাজব গৌবা, আইবির ডিরেক্টর রাজীব জৈন, র প্রধান অনিল দাসমানা ও অন্যান্য উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা৷ বিজেপির নির্বাচনী ইস্তাহারে উল্লেখিত কিছু বিষয় কার্যকর করার জন্য সচেষ্ট হতে পারেন অমিত শাহ, এমন ইঙ্গিত মিলেছিল৷

সূত্রের খবর জম্মু–কাশ্মীরের জন্য বিশেষ সাংবিধানিক রক্ষাকবচ ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার এবং কাশ্মীরের জন্য ভারতীয় সংবিধানের ৩৫(ক) ধারা বাতিল নিয়ে ভাবনা চিন্তা করা হয়েছে৷ জম্মু কাশ্মীরে আফস্পার ওপর বিশেষ আলোচনা হয়েছে৷ এছাড়াও মন্ত্রকগুলির মধ্যে সমন্বয় সাধনের ওপর এদিন জোর দেওয়া হয়েছে৷

রিপোর্ট বলছে ২০১৯ সালে ৩৭টি সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছে কাশ্মীরে৷ ১২ জন মারা গিয়েছেন, ৪০ জন আহত হয়েছেন৷ শতাধিক জঙ্গিকে আটক করা সম্ভব হয়েছে৷ জম্মু কাশ্মীর ছাড়ার পাকিস্তান ও বাংলাদেশের সীমানা ভিত্তিক নিরাপত্তা নিয়ে এদিন আলোচনা হয়েছে৷ এই প্রসঙ্গে বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলে সূত্রের খবর৷ এদিনের বৈঠকের পরে অমিত শাহ আধাসামরিক বাহিনী ও পুলিশ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে খবর৷ দিল্লি পুলিশের উচ্চমহলে বেশ কিছু রদবদল করা হতে পারে৷

[আরও খবর পড়ুন :   ভারতের সামরিকবিমান নিখোঁজ ]

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পরেই অনুপ্রবেশ, জম্মু-কাশ্মীর, অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ও কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্কের ওপর জোর দেবেন বলে জানিয়েছিলেন অমিত শাহ৷ সেই লক্ষ্যেই এগোচ্ছেন তিনি৷ বিজেপির ‘স্ট্রং ম্যান’ প্রমাণ করেছেন কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে তিনি দুবার ভাবেন না৷ ফলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবেও তাঁর কাছ থেকে সেই ধরণের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছে দেশ৷ প্রথমদিন মন্ত্রকে এসেই অমিত শাহের কাছে নানা নথি নিয়ে আসেন মন্ত্রকের অফিসাররা৷ সেগুলি খুঁটিয়ে দেখেন তিনি৷ তারপরেই গুরুত্বপূর্ণ কিছু বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেন।