পণ্যবাহী এএন-৩২ এ থাকা ১৩জন বায়ুসেনার মৃতদের দেহ আনা হচ্ছে অসমে

0
The body of 13 airborne dead bodies in the carrierA A N-32 will be brought to Assam

টাইমস বাংলা নিউজডেস্ক : বায়ুসেনা সূত্রে খবর, বায়ুসেনার পণ্যবাহী এএন-৩২ এ থাকা ১৩জন বায়ুসেনার মৃতদের দেহ হেলিকপ্টারে চাপিয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে অসমে।মৃত ১৩জন বায়ুসেনার দেহ উদ্ধার করা হয় বৃহস্পতিবার সন্ধে নাগাদ। দুর্ঘটনায় যাঁদের প্রাণ গিয়েছে তাঁদের মধ্যে ছিলেন, উইং কম্যান্ডার জিএম চার্লস, স্কোয়াড্রন এইচ বিনোদ, ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট আর থাপা, এ তানওয়ার, এস মোহান্তি, এমকে গর্গ, ওয়ারেন্ট অফিসার কেকে মিশ্র, অনুপ কুমার এস, কর্পোরাল শারিন এনকে, বিমানকর্মী এসকে সিং, পঙ্কজ, অসামরিক কর্মী পুতালিও রাজেশ কুমার।খোঁজ মিলল ব্ল্যাক বক্সেরও।ভেঙে পড়া বিমানের ব্ল্যাক বক্স অক্ষতই রয়েছে।

[আরও খবর পড়ুন :   এনআরএস কাণ্ডের তীব্র সংকট ছড়াচ্ছে রাজ্যের অন্যান্য সরকারি হাসপাতাল গুলিতেও, চিকিৎসকেরা ধীরে ধীরে ইস্তফার পথে ]

প্রসঙ্গত, অসমের জোড়হাট থেকে রওনা দেওয়ার পরই সিয়াং-এর পার্বত্য মেচুকার ঘন জঙ্গলে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল এএন-৩২। বিমানটির সঙ্গে গত সোমবার পশ্চিম সিয়াং জেলার পার্বত্য মেচুকা অঞ্চলে দুপুর একটার সময়ে শেষবার যোগাযোগ করার পরই বিমানটির রেডিও সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দীর্ঘ আটদিনের খোঁজের পরে গত মঙ্গলবার সিয়াং জেলারই পেয়াম সার্কেলের মধ্যে এই বিমানের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পায় বায়ুসেনার এমআই-১৭ হেলিকপ্টার। ঘটনাস্থলে শুধু ছাই য়ের স্তুপ পড়ে থাকায় আগেই জানানো হয়েছিল যে কারোর বেঁচে থাকার সম্ভবনা নেই বললেই চলে।কার্যত, অবশেষে মিলল তাঁদের দেহাবশেষ।প্রযুক্তিগত ত্রুটি যে এই এএন-৩২ বিমানের হারিয়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ সেটা স্বীকার করেছে বায়ুসেনা।