মাত্র ২০ বছর বয়সে সমাজকে বদলানোর চ্যালেঞ্জ, ৬ হাজার নিরন্ন মানুষের পাশে ইউথ আইকন ওয়ালি রহমানি

0

বিশেষ প্রতিবেদন,টাইমস্ বাংলা,কলকাতা : সমাজকে বদলানোর জন্য, অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার জন্য কোন ঝান্ডা লাগে না, মনে ইচ্ছা ও উদ্যম থাকলেই যে তা পারা যায় তার প্রকৃষ্ঠ উদাহরণ দেশের কনিষ্ঠতম সোশ্যাল এক্টিভিস্ট ওয়ালি রহমানি। মাত্র ২০ বছর বয়সে যিনি একাধারে একজন সমাজসেবী একজন বিতর্কবিদ বা ডিবেটর।

সাম্প্রদায়িক ঘৃনা , ধর্মের নামে রাজনীতি, ফেক ও এজেন্ডাধারী নিউজ এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ওয়ালির কাজ প্রশংসিত হয়েছে সারা ভারতবর্ষ জুড়ে। মাত্র ২০ বছর বয়সী রহমানি ভারতের সর্ব কনিষ্ঠতম সোশ্যাল অ্যাক্টিভিস্ট হিসাবে টেলিভিশনের পর্দায় প্রথম আসেন । ইতিমধ্যেই ইউটিউব ও ফেসবুকের পর্দায় দু লাখ ফলোয়ার তার। যেন রহমানি হতে চায় সবাই। তাঁর উপার্জিত অর্থ দিয়ে ইতিমধ্যেই ওয়ালি প্রতিষ্ঠা করেছেন উমিদ নামক একটি সংগঠন যেখানে রহমানি ২০ টি শিশুর গোটা জীবনের দায়িত্ব পালন করছেন। এই বয়সেই তার এই কর্মকান্ড সারা দেশের কাছে নজির সৃষ্টি করেছে। তার কথায় –
” Leaders are not born .
They are made”-

করোনা মোকাবিলায় দেশজুড়ে মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে চলছে লকডাউন। কাজ হারিয়ে দু’বেলা দু’মুঠো খাবার জোগাড় করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে দিন আনি দিন খাই মানুষগুলিকে। তাঁদের দিকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন আইনের পড়ুয়া ২০ বছরের ওয়ালি রহমানি। ৫০০০ মানুষের অন্ন সংস্থানের দায়িত্ব নেন এই তরুণ ও তাঁর দল। ৪০ দিনে প্রত্যেকের বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছেন রেশন। এই মহৎ কাজ সমাজের সামনে তুলে ধরতে অবশ্য কখনও প্রচারের আলো খোঁজেননি। চুপচাপ মানুষের সেবা করে গিয়েছেন। জানেন, এমন সংকটের দিনে এই অভুক্ত মানুষগুলির মুখে খাবার তুলে দিলেই আশীর্বাদ পাবেন। এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আর কী হতে পারে। দ্বিতীয় দফায় ১৫ টন রেশন ১৫০০ পরিবারের মধ্যে বিতরন করেন ওয়ালি। তার কাজের মধ্য দিয়ে ওয়ালি প্রমান করলেন

রহমানি এক রুপকথার নাম ।
রহমানি এক স্বপ্নের নাম ।
রহমানি এক লিডারের নাম।❣️❣️