জমি বাড়ি রেজিস্ট্রির সাথেই হয়ে যাবে মিউটেশন , আবেদনপত্র হচ্ছে তিন পাতার পদক্ষেপ পুরসভার

0
The mutation will be done with the land house registry, the application form being a three-page step municipality

পল্লব ঘোষ টাইমস বাংলা কলকাতা :  ঘর-বাড়ি মিউটেশন সরলীকরণ করতে আরও এক ধাপ এগোলো কলকাতা পুরসভা| এবার থেকে জমি বাড়ির রেজিস্ট্রির সাথেই হয়ে যাবে মিউটেশন । মিউটেশন করাতে সাধারণ মানুষকে আর হয়রানির মুখে পড়তে হবে না। পাশাপাশি অনলাইনেও করা যাবে মিউটেশনের আবেদন| আগে কলকাতা পুরসভার অন্তর্গত এলাকার জমি বাড়ি মিউটেশনের আবেদন পত্র ছিল আট পাতার| এখন তা কমিয়ে তিন পাতা করা হচ্ছে বলে শনিবার জানান মেয়র ফিরহাদ হাকিম|

কলকাতা পুরসভা এলাকায় বহু আবাসন, বাড়ি মিউটেশন পড়ে। ফলে  কোটি কোটি টাকার সম্পত্তিকর থেকে বঞ্চিত হচ্ছে পুরসভা| এই সমস্যা দূর করতেই এবার মিউটেশন প্রক্রিয়াকে সরল করার কথা ভেবেছে পুরসভা| কলকাতা পুরসভার অধীনেই সংযোজিত কলকাতার ১০১ থেকে ১৪৪ নম্বর ওয়ার্ড। তবুও ওই এলাকার ঘর-বাড়ি মিউটেশন করতে হলে এত দিন সংশ্লিষ্ট জেলা দক্ষিণ ২৪ পরগনার ভূমি ও ভূমিসংস্কার দফতরের ছাড়পত্র প্রয়োজন ছিল। শহরের সংযোজিত ওয়ার্ডে কেউ কোনও জমি, বাড়ি বা ফ্ল্যাট কিনলে এত দিন এই ভোগান্তি পোহাতে হত। ক্রেতাকে প্রথমে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার যে ভূমি ও ভূমি সংস্কারের শাখা অফিস (বিএলআরও) কসবায় ছিল, সেখান থেকে এক দফায় মিউটেশন তারপরে আবার কলকাতা পুরসভার কাছ থেকে ফের মিউটেশন করাতে হতো।

এবার থেকে কসবার বিএলআরও অফিসকে কলকাতা পুরসভার সদর কার্যালয়ে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। সংযোজিত ওয়ার্ডে জমি-বাড়ি বা ফ্ল্যাট কিনে এই অফিস থেকেই মিউটেশন করানো যাবে। কার্যালয়ের চার তলায় বিল্ডিং বিভাগের পাশেই নিয়ে আসা হয়েছে বিএলআরও অফিসকে| এরফলে মানুষের ভোগান্তি কম হবে বলেই মনে করছে পুরসভা কর্তৃপক্ষ| এই প্রসঙ্গে মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন, “শহরের নাগরিকদের সমস্ত পরিষেবা দেওয়ার জন্য আমরা পুরো বিষয়টিকে এক ছাতার নিচে আনার চেষ্টা করছি। তারই একটি পদক্ষেপ হল এই সদর কার্যালয়ে এই বিএলআরও অফিস”|


পাশাপাশি আজ ১০৯ নম্বর ওয়ার্ডে অভিডিপ্তা আবাসনে কলকাতা পুরসভা আবাসিকদের ফ্ল্যাট মিউটেশনের জন্য একটি বিশেষ ক্যাম্প এর আয়োজন করে। মিউটেশন দফতরের কর্মীরা ছাড়াও ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ ও ওই ওয়ার্ডের পুরপ্রতিনিধি অনন্যা বন্দোপাধ্যায় উপস্থিত ছিলেন| সেখানে আবাসিকদের কাছ সরাসরি মিউটেশনের আবেদন পত্র গ্রহণ করা হয় । প্রায় তিনশতাধিক আবেদন জমা হয় । এই প্রথম কলকাতা পুর সংস্থা এইধরনের ক্যাম্পের আয়োজন করল পুরঅফিসের চত্বর থেকে বাইরে এসে।